বাঁশখালী পুকুরিয়াতে কুয়াকাটা হুজুরের মাহফিলে তৌহিদী জনতার ঢল

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:৩০ PM, ০১ নভেম্বর ২০২০

গত ৩১ অক্টোবর রোজ শনিবার বাঁশখালীর পুকুরিয়াতে ইসলাম প্রচার সংস্থার ব্যবস্থাপনায়। আয়োজিত মাহফিলে তৌহিদী জনতার উপচে পড়া ভিড় চোখে পড়ার মত। অালহাজ্ব হাফেজ মাওলানা রুহুল্লাহ তালুকদার ও হাফেজ মাওলানা আইয়ুব এর যৌথ পরিচালনায় এবং বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ খোরশেদুল আলম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাড়া জাগানো বক্তা,জননন্দিত ওয়ায়েজ আলহাজ্ব মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী ( কুৃয়াকাটা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা রাশেদুল ইসলাম রহমতপুরী,চট্টগ্রাম ওমর গণি এম ই এস কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রধান, অধ্যাপক ডক্টর আঃ ফঃ ম খালেদ হোসেন, চট্টগ্রাম জামিয়া জিরির পরিচালক মাওলানা খোবাইব,জামিয়া জিরির সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা হোসাইন অাল মাহমুদ,হাফেজ মাওলানা নুর আহমদ,মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী, মাওলানা নুরুল আমিন, মুুফতি মুহিউদ্দীন সাহেব। পুকুরিয়া ইসলাম প্রচার সংস্থার প্রথম মাহফিলে মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকীর সর্বপ্রথম পুকুরিয়াতে আগমন ঘটেছে।

বাদ জোহর বৃষ্টি হলেও বাদ আছর থেকে ধারাবাহিকভাবে বয়ান চলতে থাকে।।কুৃযাকাটা হুজুরের অাাগমনের সংবাদে মাগরিবের আগেই মাহফিল স্থল ভরপুর হয়ে যায়।বাদ মাগরিব থেকে তৌহিদী জনতা সামনে বসে বয়ান শোনার জন্যে প্রতিযোগিতা শুরু করে।এশার নামাজের পূর্বেই মাঠ এবং স্কুলের তিনতলা বিশিষ্ট তিনটি ভবন ভরপুর হয়ে মাহফিলের অাশ পাশের এলাকায় লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।মাহফিলের জনস্রোত শুরু হয়েছে বাদ আছর থেকে।পুকুরিয়া ইউনিয়নের মানুষ ছাড়াও দূরদূরান্ত থেকে তৌহিদী জনতা মাহফিলে অংশগ্রহণ করেছে।দুপুর ২ টায় বয়ান করেন আনোয়ারা খাইরিয়া মাদরাসায়, বাদ মাগরিব বয়ান করেন সাতকানিয়া কেরানি হাটের মাহফিল।দুটি মাহফিল শেষ করে রাত ১০ টায় বয়ান করেন নাটমুড়া পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে।দল মত নির্বিশেষে তৌহিদী জনতার স্রোতে পুকুরিযা ইউনিয়ন লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।মাহফিল ব্যবস্থাপনা কমিটিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খেতে হয়।আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করেছে পুলিশের একটি ফোর্স,পাঁচ জন গ্রাম পুলিশ এবং দুইশ জন সেচ্চাসেবক।

মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকীর মাহফিল ঘিরে পুকুরিয়া ইউনিয়নে ছিল ঈদের আমেজ।এলাকার মা বোনরাও অনেক খুশি হয়েছেন তাঁর আগনে।কুৃয়াকাটা হুজুরের আগনে মুহুর্তেই যেন সর্বদলীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়েছে।আওয়ামী লীগ বিএনপি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নেতা কর্মীরা একই কাতারে,একই স্টেইজে এবং একই সামিয়ানার নিচে বসে যেন সকল হিংসা বিদ্বেষ ভুলে গেছে।পুকুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব আসহাববুদ্দীন,৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জনাব ফরিদ আহমদ,রাজনীতিবিদ ও নাটমুড়া পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য জনাব অাবুল কালাম স্টেইজে উপস্থিত ছিলেন।জনাব খোরশেদুল আলম বলেন,সঠিক ইসলাম পালন করতে হলে তাবলীগ এবং কওমী আলেম ওলামাদের দ্বারস্থ হওয়ার বিকল্প নেই।চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নামধারী সুন্নিদের ষড়যন্ত্রে স্থান পরিবর্তন করা হয়েছে।তিনি আগামী বছর চাঁদপুর স্কুল মাঠে কুৃয়াকাটা হুজুরকে দিয়ে মাহফিল করানোর ঘোষণা দিয়েছেন।মাহফিল ব্যস্থাপনা কমিটির অক্লান্ত পরিশ্রম এবং সেচ্চাসেবকদের অফুরন্ত কুরবানির বিনিময়ে বাঁশখালী পুকুরিয়নে জনতার ঢল নামে।এটা যেন ইতিহাসের ঐতিহাসিক মাহফিল।পুকুরিয়াবাসী এমন জনস্রোত এর পূর্বে আর কখনো দেখেনি বলে মনে করেন মাহফিল এন্তেজামিয়া কমিটির মনিটরিং সেল এর প্রধান মাওলানা শওকত অালী।ইসলাম প্রচার সংস্থার প্রধান উপদেষ্টা আলহাজ্ব রুহুল্লাহ তালুকদার বলেন,এই মাহফিল প্রতি বছর চলবে ইনশাঅাল্লাহ।

লেখকঃনুর আহমেদ সিদ্দিকী

আপনার মতামত লিখুন :