ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় টিকিট পেতে প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:১৪ PM, ৩০ অগাস্ট ২০২১

পারভেজ হোসাইন, রামগঞ্জ:

চলতি বছরের শেষদিকে ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে রামগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের বর্তমান, সাবেক ও নতুন চেয়্যারম্যান প্রার্থীরা।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গত (২৩ আগস্ট) ৮৪তম কমিশন বৈঠক শেষে আগামী ডিসেম্বর এর মধ্যে দেশের সব ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন সম্পন্ন করার ঘোষণা দেন। এর পর থেকে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধশতাধিক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা সরব হয়ে উঠে। বর্তমান চেয়ারম্যানসহ সম্ভাব্য প্রার্থীদেরকে স্থানীয় নেতাকর্মীসহ দলের উপজেলা, জেলা নেতাদের পাশাপাশি দলের হাইকমান্ডের নেতাদের সাথেও যোগাযোগ রক্ষা করে যাচ্ছেন।

জানা গেছে, নিজেকে প্রার্থীতা ঘোষণা দিতে গত পাঁচ, তিন ও দুই বছর ধরে কিছু প্রার্থী কাজ করে যাচ্ছেন।

নির্বাচনকে সামনে রেখে অনেক প্রার্থী পোষ্টার, ফেস্টুন দেওয়া শুরু করছেন। এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকেও নিজেদের প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্বাচনে অংশ গ্রহন না করার সিদ্ধান্তের ফলে, তাদের দলীয় প্রার্থীদেরকে নিয়ে আলোচনা শুনা না গেলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ থেকে উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নে বর্তমান, সাবেক ও নতুন মিলিয়ে প্রায় অর্ধশতাধিক প্রার্থীদের নিয়ে দলীয় নেতাকর্মী ও পাড়া মহল্লা চায়ের দোকান থেকে শুরু করে রাজনীতিক টেবিলে আলোচনা শুনা যাচ্ছে। এদিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নের মধ্যে ৯ টি ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। প্রার্থীরা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। জাতীয় পার্টি থেকে দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রার্থিতা ঘোষণা করা হবে। এখন নির্দিষ্ট করে কোন ইউনিয়নের প্রার্থীদের নাম জানা যায়নি।

বিভিন্ন মাধ্যম থেকে প্রাপ্ত সূত্র অনুযায়ী যে সকল চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদেরকে নিয়ে আলোচনা শুনা যাচ্ছে তারা হলেন, ১নং কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন তাইফুর, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মনির হোসেন খোকন, উপজেলা যুবলীগ নেতা বিল্লাল হোসেন (সৌদী বিল্লাল), উপজেলা যুবলীগের সদস্য আবুল কাশেম, ইসলামী আন্দোলন থেকে মোঃ আনোয়ার হোসেন সহ ৭ থেকে ৮ জন৷

২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন রানা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ দফতর সম্পাদক কাজী ফরহাদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও প্যানেল চেয়ারম্যান-১ সোহেল পাটোয়ারী, যুবলীগ নেতা ও প্যানেল চেয়ারম্যান-২ শেখ ফরিদ, বাংলাদেশ এগ্রিকালচারাল ইকুইপমেন্ট এন্ড সাপ্ল্য়ার এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হোসেন শাওন, ইসলামী আন্দোলন থাকে শামছুল হক ভূঁইয়া, তৌহিদুল ইসলাম লন্ডনীসহ ৬ থেকে ৭জন৷

৩নং ভাদুর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহিদ হোসেন ভূইয়া, আবুল হাসান, জাবেদ খান সহ ৩ থেকে ৪জন৷

৪নং ইছাপুর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান শাহানাজ আক্তার, সাবেক চেয়ারম্যান আমির হোসেন খান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খান, সাধারন সম্পাদক সামছুল ইসলাম ফারুক (এসআই ফারুক), সাবেক ৪নং ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ উল্লাহ সুযোগ্য সন্তান ও সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি রিয়াদ হোসাইন। এছাড়াও ৪ নং ইছাপুর ইউনিয়ন থেকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর প্রার্থী হবেন মোঃ ইকবাল হোসাইন।

৫নং চন্ডিপুর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান জনপ্রিয় চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভূঁইয়া, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সহকারী কমান্ডার ও প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত আলী পাইন,সাবেক রামগঞ্জ সরকারী কলেজের জিএস, ইউনিয়ন আওযামীলীগের সদস্য ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নজরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এম এম আই বুলবুল পাইন, সাবেক নুরুল ইসলাম চেয়ারম্যানের সুযোগ্য ছেলে শামছুল ইসলাম সুমন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ইকবাল পাটোয়ারী সহ ৫ থেকে ৬ জন।

৬নং লামচর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান মাহেনারা পারভীন পান্না, রামগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মোরশেদুল আমিন বাবু, সাবেক ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা ফয়েজ উল্যা জিসান, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান সোহাগ, ইসলামী আন্দোলন থেকে প্রার্থী হবেন মোঃ রফিকুল ইসলামসহ ৪ থেকে ৫ জন৷

৭নং দরবেশপুর ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান, সাবেক উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও আওয়ামীলীগ নেতা মঞ্জুরুল হক ফারুক, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ইমন হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাসুদ পাটোয়ারী, সহ ৫ থেকে ৬ জন৷

৮নং করপাড়া ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মুজিবুল হক মুজিব, আওয়ামীলীগ নেতা রেজাউল করিম সেলিম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তসলিম হোসেন, বর্তমান ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম (জাহিদ মির্জা) সহ ৪ ধেকে ৫ জন৷

৯নং ভোলাকোট ইউনিয়ন থেকে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কামাল হোসেন চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান বশির আহম্মদ মানিক, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোটের আইনজীবি, ঢাকা বার শাখা আওয়ামী আইনজীবি পরিষদের সদস্য এডভোকেট তানভীর ফুকার, উপজেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক জামান পাটোয়ারী দুলাল, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টিপু, সাবেক যুবলীগ নেতা জুয়েল, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (কোম্পানী), ইঞ্জিনিয়ার বিল্লাল হোসেন, জাফর চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হাসান আক্তার জুয়েল এবং ইসলামী আন্দোলন থেকে মাওঃ মমতাজ উদ্দিনসহ ৬ থেকে ৭ জন।

১০নং ভাটরা ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হোসেন মিঠু, সাবেক চেয়ারম্যান শেক শামছুল আলম বুলবুল, এম এম ভুট্টু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আমিনুল ইসলাম সুমন। সাবেক চেয়ারম্যানের সৈয়দ আহেমদ ভূঁইয়ার ছেলে বিল্লাল হোসেন বুলু, এছাড়াও এই ইউনিয়ন থেকে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী হবেন মোঃ আবুল হোসেন নোমান সহ ৪ থেকে ৫ জন৷

আপনার মতামত লিখুন :